খবরের বিস্তারিত...

২৪ ফেব্র“য়ারী অনুষ্ঠিতব্য পবিত্র দরসুল কোরআন মাহফিল উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত

২৪ ফেব্রুয়ারী অনুষ্ঠিতব্য পবিত্র দরসুল কোরআন মাহফিল উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত

২৪ ফেব্র“য়ারী অনুষ্ঠিতব্য পবিত্র দরসুল কোরআন মাহফিল উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত।

ঐতিহাসিক দরসুল কোরআন মাহফিল
ইসলামী সংস্কৃতির এক অনন্য সংযোজন
আঞ্জুমানে খুদ্দামুল মুসলেমিন বাংলাদেশ এর উদ্যোগে অদ্য ১৮ ফেব্র“য়ারী ২০১৮ ইংরেজী রোজ রোববার বেলা ১টায় চট্টগ্রাম জামালখাঁনস্থ প্রেসক্লাব মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে নেতৃবৃন্দ বলেছেন,- মহান আল্লাহ তায়ালা মানবজাতির উপর ইহ ও পরকালীন শান্তি, মুক্তি ও উন্নতির পূর্ণাঙ্গ দিক নির্দেশনা সম্বলিত গাইড হিসেবে অবতীর্ণ করেন পবিত্র ঐশীগ্রš’ আল-কোরআন। এবং ইসলামের সংবিধিবদ্ধ রীতিনীতি, বিধি-বিধান সম্বলিত বিশুদ্ধ ঐশীগ্রš’ পবিত্র কোরআনকে তাবৎ বিশ্ববাসীর জন্য পথ নির্দেশক হিসেবে অভিহিত করেন। যেহেতু এ পবিত্র কোরআনের মধ্যেই নিহিত রয়েছে সাম্য ও শান্তির ফল্গুধারা। অত:পর প্রিয়নবী (দ:) ধীরে-ধীরে পবিত্র কোরআনের মর্মবাণী প্রচারের মাধ্যমে তৎকালীন সবচেয়ে বর্বর আরব জনগোষ্ঠিকে প”থিবীর সর্বাপেক্ষা শ্রেষ্ঠতম সুশীল জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হন। যা সভ্যতার উষালগ্ন থেকে অদ্যাবধি সাফল্যের অদ্বিতীয় দ”ষ্টান্ত হিসেবে ইতিহাসে দেদীপ্যমান। কিš’ অত্যন্ত দু:খজনক হলেও সত্য যে, আজকের বিশ্ব পরিমন্ডলে ইসলামের উর্দি পরিহিত হয়ে একটি অপশক্তি পবিত্র কোরআনের অপব্যাখ্যা তথা ইসলাম ধর্মকে বিকৃত ও খন্ডিতভাবে উপ¯’াপন করে মুসলিম মিল্লাতের মধ্যে অবাঞ্চিত বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। ফলে কোনটি সত্য আর কোনটি মিথ্যা তা নির্ণয় করতে না পেরে মানুষ ক্রমাগতভাবে বিপথগামী হ”েছ। পবিত্র কোরআনে পরিপূর্ণভাবে নিষিদ্ধ এমন কতিপয় কর্মকান্ড মানুষের নিকট পুণ্যকাজ হিসেবে বিবেচিত হ”েছ। সন্ত্রাস, নৈরাজ্য, মানুষ হত্যা, রাষ্ট্রীয় সম্পদ ধ্বংস করা, নাশকতা তথা অবাঞ্চিত জঙ্গিবাদী অপতৎপরতাকে জিহাদের অংশ বলে মনে করছে মানুষ এবং ভালো-মন্দের সঠিকতা নিরুপনে ব্যর্থ হয়ে ক্রমশ: ভ্রষ্টতার দিকে ধাবিত হ”েছ। পাশাপাশি মুসলিম কমিউনিটিতে পারস্পরিক অনৈক্য, বিভক্তি ও বিভাজনকে অনিবার্য করে তুলেছে। এমনকি যার অশুভ শিকারে পরিণত হয়ে মানুষ ক্রমশ: অবাঞ্চিত ফেতনা-ফ্যাসাদের সাথে জড়িয়ে পড়ছে অনাকাড়িখতভাবে। ফলে শুধু সামাজিক  স্থিতিশীলতাই বিনষ্ট হচ্ছে না বরং বিশ্বশান্তিও বিঘ্নিত হচ্ছে প্রতিনিয়ত। অতএব ইসলামের মূলধারা আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত এর বিশুদ্ধ আকীদা ও আদর্শের বিস্তৃতি এবং সম্প্রসারণে ঐতিহাসিক দরসুল কোরআন মাহফিল জাতীয় জীবনে অনন্যসাধারণ অবদান রেখে চলেছে। যেটির মাধ্যমে পথহারা ও দিকভ্রান্ত মানুষ খুঁেজ পেয়েছে সত্য ও ন্যায়ের পথের সঠিক সন্ধান। ফলে এটি ক্রমান্বয়ে হয়ে উঠেছে সত্যানুসন্ধানী মানুষের নিরাপদ আশ্রয়¯’ল ও মহামুক্তির অন্যতম ঠিকানা। শুধু তাই নয়, এটি এখন ইসলামী সংস্কৃতির অনন্য সংযোজন। যেটিকে আল্লাহ, রাসূল (দ:) ও কোরআনপ্রেমী মানুষের মিলনমেলা বললে কোনভাবেই অত্যুক্তি হবে না। লিখিত বক্তব্যে আরও বলা হয় আগামী ২৪ ফেব্র“য়ারী ২০১৮ ইংরেজী জমিয়তুল ফালাহ ময়দানে অনুষ্ঠিতব্য এবারকার মাহফিলে ৫০ হাজার এর অধিক লোক সমাগম হবে। এ মাহফিলের সার্বিক সফলতার লক্ষ্যে প্রশাসনিক সর্বপ্রকার সহযোগিতার ছাড়াও দলমত নির্বিশেষে সকলের সহায়তা কামনা করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন মাহফিল প্রস্তুতি কমিটির সচিব সৈয়দ মুহাম্মদ হামেদ হোসাইন। সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন প্রস্তুতি কমিটির আহবায়ক ও বাংলাদেশ আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের প্রেসিডিয়াম মেম্বার আলহাজ্ব এড. এম আবু নাছের তালুকদার। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আঞ্জুমানে খুদ্দামুল মুসলেমিন বাংলাদেশ এর চেয়ারম্যান আল্লামা কাজী জসিম উদ্দিন, অধ্যক্ষ আল্লামা এস এম ফরিদ উদ্দিন, আঞ্জুমানের সচিব অধ্যাপক আ মা ম মুবিন, আলহাজ্ব এস এম সিরাজ উদ্দিন তৈয়্যবী, অধ্যক্ষ এম ইব্রাহিম আখতারী, আলহাজ্ব অধ্যাপক মাওলানা সৈয়দ হাফেজ আহমদ, আবদুর রহমান মান্না, মহিউল আলম চৌধুরী, আলহাজ্ব এ এম মঈন উদ্দিন চৌধুরী হালিম, আলহাজ্ব মাওলানা নিজাম উদ্দিন আলকাদেরী, আলহাজ্ব মুহাম্মদ মোজাম্মেল হোসেন, মুহাম্মদ আবদুল্লাহ আল রেজা, লায়ম মুহাম্মদ এমরান, এইচ এম নাছির উদ্দিন, মীজা মুহাম্মদ মহসিন, মুহাম্মদ নেজাম উদ্দিন, মুহাম্মদ রফিক উদ্দিন ও কাজী সুলতান আহমদ প্রমুখ।

Comments

comments

Related Post